জীবনধারা

রেলওয়ে টিকেট এর আদ্যোপান্ত | Railway Ticket

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার মধ্যে অন্যতম হলো রেলওয়ে। যার মাধ্যমে আমরা দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে খুব সহজেই যাতায়াত করতে পারি। অতীতের দিনগুলো থেকে বর্তমান সময় অব্দি রেল যানবাহনে এসেছে বিরাট পরিবর্তন। আগের দিন গুলোতে টিকেট কাটার জন্য অনেক হয় কষ্ট করতে হলেও, বর্তমান সময় আপনি খুব সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে রেলের টিকেট কেটে আপনার ভ্রমণ কে আরও সহজ করতে পারবেন। মূলত যারা ভ্রমণপিপাসু তাদের জন্য এই রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

তো যদি আপনি রেল ভ্রমণ পিপাসু একজন মানুষ হয়ে থাকেন, তবে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেক বেশি হেল্পফুল হবে। কারণ আজকের আর্টিকেলে আমি রেলওয়ে টিকেট সম্পর্কিত যে সমস্ত জানা অজানা বিষয় আছে, সে সমস্ত বিষয়গুলোর খুঁটিনাটি সম্পর্কে আমি বিস্তারিত আলোচনা করব। আর যদি আপনার এই রেলওয়ে টিকেট সম্পর্কে কোন কিছু জানার থাকে। তবে চেষ্টা করবেন আজকের পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ার। তাহলে আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনি রেলওয়ে টিকেট সম্পর্কিত অনেক অজানা বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাহলে চলুন আর দেরি না করে সরাসরি কেটে যাওয়া যাক।

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকেট কাটার সময়

আমরা সবাই জানি যে আমাদের বাংলাদেশে সবচেয়ে নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী পরিবহন ভালো রেলওয়ে। আপনি যদি কোনো দূরপাল্লার ভ্রমণ করে থাকেন তবে এই ধরনের ভ্রমণ করার জন্য অধিকাংশ মানুষ রেল যোগাযোগে ভ্রমণ করতে অনেক বেশি পছন্দ করে থাকে। আর অধিক সংখ্যক মানুষের এই যানবাহন কে পছন্দ হওয়ার কারণে রেলের টিকেট পেতে বেশ হিমশিম খেতে হয়। রেল স্টেশনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থেকেও অনেক সময় রেলওয়ে টিকেট পাওয়া সম্ভব হয় না।

কিন্তু আপনি চাইলে এই কঠিন কাজটি খুব সহজভাবে করতে পারবেন। আর সেটি হল রেল স্টেশনে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে না থেকে আপনি চাইলে আপনার ঘরে বসে মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটার ডিভাইসের মাধ্যমে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটতে পারবেন। তাছাড়া আপনি যদি অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটতে চান, সেক্ষেত্রে আপনি দিন রাত 24 ঘন্টা যেকোন সময় রেলওয়ে টিকেট কাটতে পারবেন।

তবে সেজন্য আপনাকে জেনে নিতে হবে যে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম গুলো সম্পর্কে। কারণ কিভাবে অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কাটতে হয়, সে সম্পর্কে যদি আপনার কোন প্রকার ধারনা না থাকে। তাহলে আপনি কোনো ভাবেই অন্য মানুষদের মতো অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট কাটতে পারবেন না। চলুন এবার তাহলে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম গুলো সম্পর্কে একটু বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম

যদি আপনি কি রেলস্টেশনের টিকিট কাউন্টারে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে টিকিট কাটতে না চান, তাহলে আপনাকে এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। আর সেই পদ্ধতিটি হলো আপনাকে অনলাইনের মাধ্যমে রেলওয়ে টিকেট কাটতে হবে। তবে অনলাইনের মাধ্যমে এই কাজটি করার জন্য আপনাকে বেশ কিছু নিয়ম এবং ধাপ অনুসরণ করতে হবে। যদি আপনি সঠিক ভাবে সেই ধাপগুলো অনুসরণ করতে পারেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই কঠিন এই কাজটি আপনার নিজের ঘরে বসেই করতে পারবেন। তো চলুন আসলে জেনে নেয়া যাক যে অনলাইনে টিকিট কাটার জন্য আপনাকে কি কি ধাপ অনুসরণ করতে হবে।

  1. সবার আগে আপনাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে ই টিকেটিং সার্ভিস এর একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে। যদি আপনি একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে চান তাহলে আপনার বেশ কিছু ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন পড়বে যেমন, আপনার ইমেইল, আপনার ফোন নম্বর ইত্যাদি।
  2. তবে উপরোক্ত ডকুমেন্ট গুলো জমা দেওয়ার পাশাপাশি আপনাকে আপনার এনআইডি কার্ডের কপি অথবা আপনার জন্ম নিবন্ধনের কপি প্রদান করতে হবে।
  3. যখন আপনি উপরোক্ত ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার নতুন একটি একাউন্ট তৈরি করবেন তখন অবশ্যই আপনার দেয়া মোবাইল নম্বরটি ভেরিফাই করে নিতে হবে।
  4. তো যদি আপনি তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে সঠিক ভাবে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারেন। তাহলে পরবর্তী সময় আপনাকে পুনরায় সেই অ্যাকাউন্ট নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে।
  5. তো যখন আপনি আপনার সদ্য রেজিস্ট্রেশন করা একাউন্ট দিয়ে লগইন করবেন, তখন আপনি আপনার পছন্দমত ট্রেন সার্চ করতে পারবেন এবং সিট বাছাই করে নিতে পারবেন।
  6. যখন আপনি ট্রেন সার্চ করে আপনার পছন্দমত সিট বাসায় করবেন তখন আপনাকে নির্দিষ্ট পেমেন্ট পরিশোধ করে দিতে হবে।
  7. উপরোক্ত কাজ গুলো সঠিকভাবে করার পরে আপনাকে একটি ট্রেনের টিকিট দেওয়া হবে এবং সেই ট্রেনের টিকেট আপনাকে অবশ্যই ডাউনলোড করার পর প্রিন্ট করে নিতে হবে।

তো আপনি যদি উপরোক্ত ধাপ গুলো সঠিক ভাবে অনুসরণ করতে পারেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই নিজের ঘরে বসেই রেলওয়ে টিকেট কাটতে পারবেন। যদিও বা এ কাজগুলো করার মধ্যে আরও বেশ কিছু কাজ করতে হবে। তবে সেগুলো আপনি অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় নিজে থেকেই বুঝে নিতে পারবেন।

বিকাশে রেলওয়ে টিকেট কাটার নিয়ম

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষকে খুঁজে পাবেন যারা মূলত বিকাশে রেলওয়ে টিকেট কাটতে চান। তবে বিষয়টি দুঃখজনক হলেও সত্য যে বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ সরাসরি বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে রেলওয়ে টিকেট কাটার কোন প্রকার পদ্ধতি এখনো উন্মুক্ত করা হয়নি। তবে আশা নয় বিশ্বাস করি যে, খুব দ্রুত বাংলাদেশ রেল যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের থেকে বিকাশে রেলওয়ে টিকেট কাটার নিয়ম অবশ্যই উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। কেননা বর্তমান বাংলাদেশের বিকাশ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ব্যাপক পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। এবং বাংলাদেশ রেল যোগাযোগ মন্ত্রণালয় থেকে যদি বিকাশের মাধ্যমে রেলওয়ে টিকিট কাটার কোন পদ্ধতি বের করে দেয়। তাহলে আমাদের সাধারন জনগনের পক্ষে রেল টিকেট কাটা অনেক সহজ হবে।

রেলওয়ে টিকেট চেক করার নিয়ম

যদি আপনি আপনার নিজস্ব প্রোফাইল থেকে রেলওয়ে টিকিট কাটেন, সেক্ষেত্রে আপনাকে উক্ত টিকেট চেক করার কোন প্রয়োজন পড়বে না। তবে আপনি যদি অন্য কোন ব্যক্তি বা অন্য কোন বন্ধুর কাছ থেকে টিকেট সংগ্রহ করেন, তাহলে অবশ্যই আপনার উচিত সেই টিকেট টিকেট চেক করে নেওয়া। আর আপনি চাইলে খুব সহজেই এই কাজটি করতে পারবেন, সেজন্য আপনাকে বেশ কিছু ধাপ অতিক্রম করতে হবে। চলুন এবার তাহলে জেনে নেয়া যাক কিভাবে রেলওয়ে টিকেট চেক করতে হয়।

  1. যদি আপনি রেলওয়ে টিকেট চেক করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনাকে নতুন কোনো অ্যাকাউন্ট তৈরি করার প্রয়োজন পড়বে না। বরং আপনি বাংলাদেশ e-ticket রেলওয়ে সার্ভিস এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে সরাসরি চেক করে নিতে পারবেন।
  2. আপনি চাইলে এখানে ক্লিক করে বাংলাদেশ e-ticket রেলওয়ে সার্ভিস এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন।
  3. যখন আপনি তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন তখন আপনি ticket verify নামের একটি অপশন দেখতে পারবেন। আপনাকে সেই অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  4. এরপর আপনাকে আপনার টিকেটে থাকা তথ্যগুলো দিয়ে সেই টিকেট টি আসল নাকি নকল তা চেক করে নিতে হবে।

তো যদি আপনি উপরোক্ত ধাপ গুলো সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই যেকোন রেলওয়ে টিকেট চেক করে নিতে পারবেন। এবং আপনি প্রতারণার হাত থেকে রেহাই পাবেন।

রেলওয়ে টিকেট কাটার অ্যাপস

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা মূলত রেলওয়ে টিকেট কাটার অ্যাপস খুঁজে থাকেন। তবে সত্যি বলতে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত সেরকম কোন অ্যাপস তৈরি করা হয়নি। যদি এরকম কোন অ্যাপস তৈরি করা হয় তাহলে আমাদের মত সাধারন জনগণের ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হবে। কারন বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকেট কাটার জন্য অনলাইনে যে একটি ওয়েবসাইট রয়েছে সেই সাইটের সার্ভার ডাউন এর যে সমস্যা আছে। রেলওয়ে টিকেট কাটার অ্যাপস এর মাধ্যমে সেই সমস্যা থেকে অনেকটা রেহাই পাবো।

Back to top button