রিভিউ

বাংলাদেশের বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় রচনা (insurance sector in Bangladesh)

আপনি যদি বিশেষ প্রয়োজনে অনুসন্ধান করে থাকেন বাংলাদেশের বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় রচনা তবে সঠিক জায়গায় এসেছেন (insurance sector in Bangladesh)। এই পোষ্টের সাথে সাথে বীমা সংক্রান্ত নানান প্রতিপাদ্য।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়েছেন। তিনি 29 বছর ধরে বীমা খাতে জড়িত। ভারত, শ্রীলঙ্কা, সিঙ্গাপুর এবং সুইজারল্যান্ড সহ বিভিন্ন দেশে প্রশিক্ষণ, সেমিনার এবং সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছেন। জাতীয় বীমা দিবস উপলক্ষে তিনি বীমা খাতে সম্ভাবনা, চ্যালেঞ্জ এবং করণীয় নিয়ে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুহিনা ফেরদৌস

প্রথমবারের মতো রাষ্ট্রীয়ভাবে বীমা দিবস পালনের বিষয়টিকেও কীভাবে দেখছেন?

বীমা খাতের জন্য দিনটি বড় ঋণের। জাতীয় বীমা নীতি প্রণয়নের সময় জাতীয় বীমা দিবস নিয়ে ভাবনার শুরু। ভালো কথা হলো, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কিছুদিন বীমা খাতের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। 1960 সালের 1 মার্চ তিনি তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক হিসাবে আলফা ইন্স্যুরেন্সে যোগদান করেন। আমরা, ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে, দিনটিকে বীমা দিবস হিসেবে পালনের জন্য সরকারের কাছে প্রস্তাব করছি। চলতি বছরের জানুয়ারিতে মন্ত্রিসভায় এটি অনুমোদন হয়। আজ, তার ইতিহাসে প্রথমবারের মতো, জাতীয়ভাবে বীমা দিবস পালিত হচ্ছে। শুধু বীমা নয়, অন্যান্য আর্থিক খাতের সঙ্গে মিলিয়ে দিবসটি পালন করা হচ্ছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত করবেন। এর মাধ্যমে খাতটির আরও উন্নয়ন হবে বলে আমি মনে করি।

বাংলাদেশের বীমা খাতের সম্ভাবনা কতটুকু?

বাংলাদেশে বীমা একটি প্রতিশ্রুতিশীল খাত। আমি ২৯ বছর ধরে এই সেক্টরের সাথে জড়িত। হয়তো আমি আশা করেছিলাম এটি কাজ করেনি। কিন্তু এখনও অনেক কিছু করার আছে। আমরা যোগ্য এবং মেধাবীদের এই সেক্টরে যোগদানের জন্য আহ্বান জানাই। যিনি আমাকে এখানে কাজ করতে অনুপ্রাণিত করেছেন তিনি বলতেন, ভালো মানুষ ছাড়া ভালো কাজ করা যায় না। আমি আশা ছাড়ি না। বর্তমানে এ খাতে অনেক দক্ষ ও মেধাবী মানুষ আসছেন। একই সাথে প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে ফিনটেক, ইন্স্যুরেন্সটেক এবং এমএফএস (মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস) অনলাইন পেমেন্ট সেবা বীমা খাতকে বিভিন্নভাবে সাহায্য করছে। সমস্যা হল, অনেকে বীমাকে ভিন্নভাবে দেখেন।

Read More:   ইন্সুরেন্স কোম্পানি কি (What is Insurance Company )

যদিও বীমা একটি আর্থিক খাত। ব্যাঙ্কগুলির মতো, বীমা পরিষেবাগুলির সমস্যাও জড়িত। অনলাইন লেনদেন পর্যন্ত, গ্রাহকের জন্য একটি বীমা পলিসি তৈরি করা এবং অর্থ প্রদান করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। কারণ এজেন্টকে গ্রাহকের কাছে গিয়ে পেমেন্ট সংগ্রহ করতে হতো। অনেক সময় গ্রাহকের অভিযোগ কোম্পানির কাছে পৌঁছায় না। বর্তমানে গ্রাহক অ্যাপ বা কার্ডের মাধ্যমে তার পেমেন্ট জমা দিতে পারেন। আপনি ঘরে বসে দেখতে পারেন কত প্রিমিয়াম এবং বোনাস জমা হয়েছে ইত্যাদি সব মিলিয়ে এক ধরনের স্বচ্ছতা তৈরি হয়েছে। এ কারণে বীমা খাত নিয়ে আমি খুবই আশাবাদী।

আপনি পড়ছেন বাংলাদেশের বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় রচনা (insurance sector in Bangladesh) আকারে। একই পোষ্টে থাকছে বিমা সংক্রান্ত আরও কিছু তথ্য। পড়তে থাকুন।

বীমা শিল্পের প্রতিবন্ধকতাগুলো কী?

স্বাধীনতার পর একটি জীবন বীমা কর্পোরেশন এবং একটি সাধারণ বীমা কর্পোরেশন ছিল। এ ছাড়া কোনো বীমা কোম্পানি ছিল না। একই সময়ে সরকারি-বেসরকারি 10-15টি ব্যাংক ছিল। তাছাড়া ব্যাংকিং অভিজ্ঞতা সম্পন্ন অনেক দক্ষ লোক ছিল। বিপরীতে, বীমা খাতে যাদের অভিজ্ঞতা কম। 1985 সালে বেসরকারীকরণ করা হলেও বীমা খাতের উন্নয়নের জন্য আমাদের কাছে জনবল ছিল না। সে অর্থে বীমা খাতের উন্নতি হচ্ছে।

যদিও আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত 2000 সালে বেসরকারীকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, পার্থক্য হল যে তারা বেসরকারি কোম্পানিগুলিকে বিদেশী অংশীদার আনার অনুমতি দিয়েছে। ফলে তাদের প্রাইভেট কোম্পানির সঙ্গে পুরনো বিদেশি কোম্পানির অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে তারা বিদেশি প্রযুক্তি ও পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছে। যে কারণে আমরা তাদের সেক্টরের মতো এতটা অগ্রগতি করতে পারিনি।

এছাড়া অন্যান্য কী ধরনের চ্যালেঞ্জ রয়েছে?

বীমা সম্পর্কে মানুষের কাছে বার্তা পৌঁছে দেওয়া একটি চ্যালেঞ্জ। যেখানে সাধারণ মানুষ তাদের টাকা রাখে; একটি ব্যাংক, বীমা কোম্পানি বা লিজিং কোম্পানিতে? আমাদের আসলে আর্থিক খাত সম্পর্কে একটু কম জ্ঞান আছে। বীমা খাত সম্পর্কে জ্ঞান কম। আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক হলাম, তখন বীমা সম্পর্কে আমার কোন ধারণা ছিল না। কারণ সিলেবাসে এ বিষয়ে কোনো উল্লেখ ছিল না।

Read More:   অগ্নি বীমা কাকে বলে বিস্তারিত জানুন

পরের বার যখন আমি এটি সম্পর্কে জানব, আমি দেখতে পাচ্ছি যে কীভাবে বীমা আমাদের জীবনকে আর্থিকভাবে শক্তিশালী করে তোলে। এসব বিষয় যদি জনগণকে বোঝাতে পারি তাহলে এ খাতের উন্নতি হবে। উন্নত বিশ্বের নাগরিকরা গাড়ি থেকে শুরু করে বাড়ি পর্যন্ত প্রায় সবকিছুরই বীমা করে থাকে। তাদের অবসরের পরিকল্পনা রয়েছে। আমরা বলছি অবসর পরিকল্পনা প্রত্যেকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৬০ বছরের চাকরি শেষে কী হবে তা ভাবতে হবে। বীমা খাতে এমন অনেক চাকরির সুযোগ রয়েছে। আমরা যদি এই বিষয়গুলোকে গুরুত্ব সহকারে নিতে পারি তাহলে একটি বড় বাজার অবশ্যই আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। এই প্রেক্ষাপটে বীমা খাতে লোক নিয়োগ, তাদের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষিত করাও আমাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। যাইহোক, বীমা খাতে কাজ করা সমাজের প্রতি এক ধরনের দায়বদ্ধতার পাশাপাশি আত্ম-উন্নতি।

অনেকে বীমা দাবি পরিশোধ করে না…

অনেকে ব্যাংককে বীমা কোম্পানির সাথে একীভূত করে। ব্যাংকে রাখা টাকা ফেরত দেওয়া হয়। এদিকে, বীমা কোম্পানি গ্রাহকের আমানত ফেরত দেওয়ার পাশাপাশি সুরক্ষা প্রদান করে। এক্ষেত্রে কিছু নিয়ম-কানুন আছে। যেমন, বীমা ন্যূনতম দুই বছর চালাতে হয়, অন্যথায় গ্রাহক কোন টাকা ফেরত পাবেন না, ইত্যাদি ব্যাংকের টাকা তোলা যাবে, বীমা করে না। মানুষ মনে করে টাকা জমা রেখেছি, ফেরত দিব না কেন!

অনেকেই বীমার নিয়ম বোঝেন না। যেহেতু বীমা সম্পর্কে আমাদের ধারণা কম, তাই এ নিয়ে একটি সাধারণ দ্বিধা রয়েছে। বীমার নিয়ম-কানুন সঠিকভাবে মেনে চললে নিশ্চয়ই এ খাত মানুষের পারিবারিক সুরক্ষার জন্য চমৎকার সমাধান দিতে সক্ষম হবে।

কী ধরনের প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হচ্ছেন?

গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স একটি চতুর্থ প্রজন্মের জীবন বীমা কোম্পানি। 2015 সালে, আমি গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সে যোগদান করি। অন্যদের তুলনায় বীমাকে অনেক নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হয়। বাজার অনেক বড়, কিন্তু আমরা সেভাবে প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হইনি। আমাদের একক বীমার পাশাপাশি কর্পোরেট বীমার অভিজ্ঞতা রয়েছে। গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সাথে অ্যাপেক্স, স্কয়ার, ব্র্যাক এবং আরও কিছু কোম্পানি।

Read More:   বীমা প্রিমিয়াম কি/ কাকে বলে

আমরা যৌথ বীমার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়েছি। দ্য গার্ডিয়ানের ব্র্যাক ইন্স্যুরেন্স (GBB) নামে একটি বীমা পলিসি রয়েছে। বর্তমানে প্রায় ১ কোটি ১১ লাখ মানুষকে বীমার আওতায় আনা সম্ভব হয়েছে। প্রিমিয়াম সংগ্রহ করা আমাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। আমাদের কাছে মাই গার্ডিয়ান নামে একটি অ্যাপ আছে। এর মাধ্যমে গ্রাহক ঘরে বসেই তার পলিসি চালাতে পারবেন। যার সুফল আমরা পাচ্ছি। আমাদের একটি 24 ঘন্টা কল সেন্টার আছে। কোনো গ্রাহকের সেবার প্রয়োজন হলে এখান থেকে সহায়তা দেওয়া হয়।

নতুন প্রজন্ম অনলাইন সেবা নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। ইজি লাইফ নামে আমাদের আরেকটি অ্যাপ আছে। নতুন প্রজন্মের অনেকেই আমাদের নীতিতে সাইন আপ করেছেন। সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি আমরা যদি বীমা সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায় নিয়ে যেতে পারি তাহলে আরও অনেক মানুষ এর থেকে উপকৃত হবে।

সরকারের কাছে প্রত্যাশা কী?

মানুষকে বীমা করানো একটি বড় চ্যালেঞ্জ। আমরা নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে কথা বলেছি, যদি ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে মানুষের কাছে বীমা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়, তাহলে গ্রাহকের সংখ্যা বাড়বে। এর পাশাপাশি আমরা কর্পোরেট এজেন্টদের কথা বলেছি।

যদি কর্পোরেট এজেন্টরা আমাদের নীতি নির্ধারকদের কাছে আসে, তাহলে ব্যাঙ্ক, লিজিং কোম্পানি, এনজিওগুলি বীমা বিক্রির একটি চ্যানেল হিসাবে কাজ করতে পারে। এতে শুধু ব্যাংকের সাথে বীমা চ্যানেলের মাধ্যমে বীমা রাজস্ব বাড়বে না, কমিশনের মাধ্যমেও তারা লাভবান হবে। এটি ভারত, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়ায় পাওয়া যায়। এ বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে আমরা ইতিবাচক সাড়া পেয়েছি। আশা করছি এ বছরের মধ্যেই আমরা ব্যাংকিং চ্যানেলে কাজ করার সুযোগ পাব। সূত্র: বণিক নিউজ

আশাকরি উক্ত লেখনি আপনি বাংলাদেশের বীমা খাতের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় (insurance sector in Bangladesh) রচনা হিসেবে হুবুহ ব্যবহার করবেন না। শুধুমাত্র আপনার মাঝে ধারণা সৃষ্টি করার জন্য এই পোষ্ট প্রদান করা কিন্তু হুবুহু নকল করতে নয়। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button