জেলা পরিচিতি

গোপালগঞ্জ জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত, নামকরণ ও দর্শনীয় স্থান

আপনি যদি খুঁজে থাকেন গোপালগঞ্জ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি, গোপালগঞ্জ জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত, গোপালগঞ্জ জেলার দর্শনীয় স্থান, গোপালগঞ্জ জেলার বিখ্যাত স্থান ও গোপালগঞ্জ জেলার নামকরণের ইতিহাস সম্পর্কে তবে সঠিক জায়গায় এসেছেন।

গোপালগঞ্জ জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ঢাকা বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল।যার মোট আয়তন ১,৪৬৮.৭৪ বর্গকিমি (৫৬৭.০৮ বর্গমাইল) এবং জনসংখ্যা ১১,৭২,৪১৫।

গোপালগঞ্জ জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত

গোপালগঞ্জ জেলা বাদাম, পাট ও তরমুজের জন্য বিখ্যাত। কারণ এই জেলাতেই উল্লেখিত পণ্য সমূহ সর্বাধিক পরিমাণে উৎপন্ন হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মস্থান গোপালগঞ্জ জেলাতে।

গোপালগঞ্জ জেলার নামকরণের ইতিহাস

অনেক দিন আগে গোপালগঞ্জ জেলা রাজগঞ্জ নামে পরিচিত ছিল। তখন ছিল ব্রিটিশ রাজত্ব।গোপালগঞ্জ অঞ্চলটি মাকিমপুর ষ্টেটের জমিদার রাণি রাসমনির দায়িত্বে ছিল।তিনি এক জেলে কন্যা ছিলেন। তিনি একদিন এক ইংরেজ সাহেবের প্রাণ রক্ষা করেন।তখন ছিল সিপাই মিউটিনির সময়। পরবর্তীতে তারই পুরষ্কার স্বরূপ ইংরেজরা তাকে সম্পূর্ণ মাকিমপুরে অঞ্চল দিয়ে দেন। রানী রাসমনির নাতি ছিলেন গোপাল। সেই গোপালের নামানুসারে রাজগঞ্জের নাম হয় গোপালগঞ্জ।

গোপালগঞ্জ জেলার দর্শনীয় স্থান

গোপালগঞ্জ জেলার বিখ্যাত স্থান ও এটি স্বণামধন্য হওয়ার অন্যতম কারণ। নিম্নে জায়গা গুলোর নাম দেওয়া হলো:

➤টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি কমপ্লেক্স।
➤চন্দ্রা ভর্মা ফোর্ট (কোটাল দুর্গ)।
➤কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের পৈত্রিকবাড়ী।
➤কবি কৃষ্ণনাথ সর্বভৌম (ললিত লবঙ্গলতা কাব্যগন্থের প্রণেতা)-র বাড়ী।
➤হরিনাহাটি জমিদার বাড়ি।
➤দিঘলীয়া দক্ষিণা কালী বাড়ি।
➤বহুতলী মসজিদ (১৫৫৩ সালে
প্রতিষ্ঠিত)।
➤সেন্ট মথুরানাথের সমাধি।
➤উজানীর জমিদার বাড়ি
➤শ্রীধাম ওড়াকান্দ।
➤জগদান্দ মহাশয়ের তীর্থভূমি।
➤ননীক্ষীরে নবরত্ন মঠ।
➤ঐতিহাসিক রমেশ চন্দ্র মজুমদারের। পৈতৃক বাড়ী।

➤ধর্মরায়ের বাড়ি।
➤দীঘলিয়া দক্ষিণা কালীবাড়ি।
➤মধুমতি নদী।
➤বিলরুট ক্যানেল।
➤হিরন্যকান্দী আমগাছ।
➤আড়পাড়া মুন্সীবাড়ি।
➤শুকদেবের আশ্রম।
➤খানার পাড় দীঘি।
➤উলপুর জমিদার বাড়ি
➤হেমায়েত বাহিনী জাদুঘর(কোটালিপাড়া)।
➤৭১-এর বধ্যভূমি স্মৃতিসৌধ (স্মৃতিস্তম্ভ)।
➤রাজা সমাচার দেব, ধর্মাদিত্য ও গোপচন্দ্রের আমলের তাম্রলিপি।
➤সত্য ধর্মের প্রবর্তক দীননাথ সেনের সমাধিসৌধ (জলিরপাড়, মুকসুদপুর)।
➤পাগল সেবাশ্রম, কদমবাড়ি।

➤গওহরডাঙ্গা মাদরাসা( টুঙ্গিপাড়া)।
➤বাঘিয়ার বিল(টুঙ্গিপাড়া)।
➤হোগলাডাঙ্গা বড় মসজিদ।
➤ছোট বনগ্রাম জমিদার বাড়ি,।
➤ভেন্নাবাড়ী মাদরাসা, গোপালগঞ্জ সদর।
➤সুকতাইল মঠবাড়ি।
➤বাটিকামারী জমিদার বাড়ি।
➤শেখ রাসেল শিশুপার্ক, টুুুঙ্গিপাড়া।
➤শেখ কামাল স্টেডিয়াম, গোপালগঞ্জ।
➤লেকপাড়, গোপালগঞ্জ শহর।

গোপালগঞ্জ জেলার বিখ্যাত ব্যক্তি

এই জেলাটি বিখ্যাত হওয়ার পেছনে রয়েছে নিম্নোক্ত সকল ব্যক্তিবর্গ। যাদেরকে আজ হাজার হাজার ইতিহাস রচিত সেই স্বণামধন্যদের বিশাল একটি অংশ দখল করে আছ গোপালগঞ্জ জেলা। যাদের নাম না বললেই নয় তারা হলেন:

➤শেখ মুজিবুর রহমান।
➤শেখ লুৎফুর রহমান – মুজিব পিতা। সেরেস্তাদার, ব্রিটিশ ভারতের গোপালগঞ্জ দেওয়ানী আদালতের নথি সংগ্রহের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা।
➤সায়েরা খাতুন:-বঙ্গবন্ধুর জননী।
➤জামিল উদ্দিন আহমেদ:-বীর উত্তম।
➤শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব:-বঙ্গবন্ধুর সহধর্মীনি।
➤শেখ আবু নাসের:-বঙ্গবন্ধুর ভাই।
➤শেখ কামাল:-বঙ্গবন্ধুর প্রথম ছেলে।
➤শেখ জামাল:-বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় ছেলে।
➤শেখ রাসেল:-বঙ্গবন্ধুর সর্বকনিষ্ঠ সন্তান।
➤রমেশচন্দ্র মজুমদার (১৮৮৮- ১৯৮০) একজন বাঙালি ইতিহাসবিদ।১৯৩৬-১৯৪২ তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সচরাচর আর, সি, মজুমদার নামে অভিহিত।
➤শামসুল হক ফরিদপুরী, লেখক, ইসলামী চিন্তাবিদ।
➤সুধীরলাল চক্রবর্তী(১৯১৬-১৯৫২)বাংলা ভাষার সুরকার ও সঙ্গীতজ্ঞ ও সুরকার।
➤নির্মল সেন (বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিস্ট, বাম রাজনীতির পুরোধা ও মুক্তিযোদ্ধা)।
➤শেখ হাসিনা – বর্তমান প্রধানমন্ত্রী।
➤শেখ রেহানা:-বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় মেয়ে।
➤সুকান্ত ভট্টাচার্য (কবি)।

➤রকিবুল হাসান (বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক)।
➤শেখ ফজলুল হক মনি (যুবলীগের প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান)।
➤মথুরানাথ বসু (বিশিষ্ট খ্রিষ্টান ধর্ম প্রচারক)।
➤আবদুস সামাদ (কৃতি ফুটবলার)।
➤সোহরাব হোসেন (কৃতি ফুটবলার)।
➤এম এ সাঈদ (সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার)।
➤ফিরোজা বেগম (সংগীত শিল্পী)
➤কাজী হায়াৎ পরিচালক, কাহিনীকার, চিত্রনাট্যকার, প্রযোজক এবং অভিনেতা [১] শাকিব খান(অভিনেতা, প্রযোজক, চলচ্চিত্রকার)
➤কাজী মারুফ(অভিনেতা, প্রযোজক)
➤জয়া আহসান(অভিনেত্রী)
➤এস এম ইমদাদুল হক:-বীর উত্তম
➤মোক্তার আলী (বীর প্রতীক)
➤বেনজির আহমেদ(মহাপরিদর্শক, বাংলাদেশ পুলিশ)
➤চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাত, ধারাভাষ্যকার
➤ইলিয়াস আলী, মোহামেডান ক্লাবের সাবেক খেলোয়াড় ও জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক।

➤মাইনুল আহসান নোবেল, গায়ক
➤সালমা খাতুন, মহিলা ক্রিকেটার।
➤মনিরুল ইসলাম, ডিআইজি, গোয়েন্দা পুলিশ।
➤মেহেরাব হোসেন অপি, বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান।
➤মারজুক রাসেল:গীতিকার।
➤নরেন বিশ্বাস ,একজন বাংলাদেশী লেখক, গবেষক, আবৃত্তি শিল্পী এবং মুক্তিযোদ্ধা। আবৃত্তি চর্চায় তার নিপুণতা এবং বিভিন্ন গবেষণামূলক বই লেখার জন্য তাকে বাকশিল্পাচার্য বলা হয়ে থাকে।
➤মরহুম মোহাম্মদ আবুল খায়ের,মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক,জাতিরজনকের ৭ই মার্চের ভাষণের রেকর্ড করেন ও সংরক্ষণ করেন। বংগবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, চলচ্চিত্র পরিচালক,সাবেক এম এল এ।

সকল জেলার সম্পর্কে জানুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button