পড়াশোনামাধ্যমিক/ উচ্চ মাধ্যমিক

নবম (৯ম) শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর চতুর্থ (৪র্থ) সপ্তাহ ২০২২

৯ম শ্রেণীর বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্ব সভ্যতা এসাইনমেন্ট সমাধান 2022 চতুর্থ সপ্তাহের

আপনি কি নবম (৯ম) বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমাধান ২০২২ ৪র্থ (চতুর্থ) সপ্তাহ ২০২২ অনুসন্ধান করে চলেছেন? তবে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাত অধিদপ্তর থেকে আপনাদের চতুর্থ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট ইতিমধ্যে প্রকাশ করেছে ।

নবম শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্ব সভ্যতা অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ৪র্থ সপ্তাহ ২০২২


উপরোক্ত চিত্রের মাধ্যমে আপনি দেখতে পাচ্ছেন নবম শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমাধান ২০২২ এ কি কি বিষয়াবলী রয়েছে। এবার আমরা সমাধান দেখে নিই।

৯ম শ্রেণি বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা এসাইনমেন্ট উত্তর চতুর্থ সপ্তাহ ২০২২

ইতিমধ্যে আপনার কাঙ্খিত বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা এসাইনমেন্টের উত্তর সমাধান ২০২২ ৪র্থ (চতুর্থ) সপ্তাহ প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান এখান থেকে শুরু হচ্ছে।

এসাইনমেন্ট শিরোনামঃ ইতিহাসের ধারণা, পরিসর এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়ােজনীয়তা।

ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারণা ব্যাখ্যা 

‘ইতিহাস’ শব্দটিরউৎপত্তি ‘ইতিহ’ শব্দথেকে; যার অর্থ ‘ঐতিহ্য। ঐতিহ্য হচ্ছে অতীতেরঅভ্যাস, শিক্ষা, ভাষা,শিল্প, সাহিত্য-সংস্কৃতি যা ভবিষ্যতেরজন্য সংরক্ষিত থাকে। এই ঐতিহ্যকেএক প্রজন্ম থেকে আরেকপ্রজন্মের কাছে পৌঁছেদেয় ইতিহাস। ই. এইচ. কার-এর ভাষায় বলাযায়, ইতিহাস হলাে বর্তমান ও অতীতের মধ্যেএক অন্তহীন সংলাপ। বর্তমানের সকলবিষয়ই অতীতের ক্রমবিবর্তন ও অতীত ঐতিহ্যেরওপর ভিত্তি করেগড়ে উঠেছে। আর অতীতের ক্রমবিবর্তন ও ঐতিহ্যের বস্তুনিষ্ঠ বিবরণইহলাে ইতিহাস।

তবে এখন বর্তমানসময়ের ইতিহাস লেখাহয়, যাকে বলে সাম্প্রতিকইতিহাস। সুতরাং ইতিহাসের পরিসরসুদূর অতীত থেকে বর্তমান পর্যন্তবিস্তৃত। ইতিহাস শব্দটির সন্ধিবিচ্ছেদ করলে এরূপদাঁড়ায়, ইতিহ + আস। যারঅর্থ এমনই ছিল বা এরূপ ঘটেছিল। ঐতিহাসিক ড. জনসনওঘটে যাওয়া ঘটনাকেই ইতিহাস বলেছেন। তাঁরমতে, যা কিছু ঘটে তাই ইতিহাস। যা ঘটেনা তা ইতিহাস নয়।

গ্রিক শব্দহিস্টরিয়া (Historia) থেকে ইংরেজিহিস্টরি (History) শব্দটির উৎপত্তি, যার বাংলাপ্রতিশব্দ হচ্ছে ইতিহাস। হিস্টরিয়া’ শব্দটিরপ্রথম ব্যবহার করেন গ্রিকঐতিহাসিক হেরােডােটাস (খ্রিষ্টপূর্ব পঞ্চম শতক)। তিনিইতিহাসের জনক হিসেবে খ্যাত। তিনিইসর্বপ্রথম তাঁর গবেষণাকর্মের নামকরণেএ শব্দটি ব্যবহার করেন, যারআভিধানিক অর্থ হলাে সত্যানুসন্ধান বাগবেষণা। তিনি বিশ্বাস করতেন, ইতিহাসহলাে- যা সত্যিকার অর্থেছিল বা কি সংঘটিতহয়েছিল তা অনুসন্ধান করাও লেখা।

তিনি তাঁর গবেষণায়গ্রিস ও পারস্যের মধ্যেসংঘটিত যুদ্ধের বিভিন্নবিষয় অনুসন্ধান করেছেন। এতে তিনিপ্রাপ্ত তথ্য, গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাএবং গ্রিসের বিজয়গাথালিপিবদ্ধ করেছেন। যাতে পরবর্তীপ্রজন্ম এ ঘটনা ভুলেনা যায়, এ বিবরণ যেন তাদের উৎসাহিতকরে এবং দেশপ্রেমেউদ্বুদ্ধ করে। হেরােডােটাসই প্রথমইতিহাস এবং অনুসন্ধান- এ দুটি ধারণাকে সংযুক্ত করেন। ফলেইতিহাস পরিণত হয়বিজ্ঞানে, পরিপূর্ণভাবে হয়েওঠে তথ্যনির্ভর এবং গবেষণার বিষয়ে। প্রকৃতপক্ষেমানব সমাজের অনন্তঘটনাপ্রবাহই হলাে ইতিহাস।

ইতিহাসবিদ র্যাপসন বলেছেন, ইতিহাসহলাে ঘটনার বৈজ্ঞানিক এবংধারাবাহিক বর্ণনা। আধুনিক ইতিহাসেরজনক জার্মান ঐতিহাসিকলিওপোেল্ড ফন্য ব্যাংকে মনেকরেন, প্রকৃতপক্ষে যা ঘটেছিল তারঅনুসন্ধান ও তার সত্য বিবরণই ইতিহাস। সুতরাংইতিহাস হচ্ছে মানব সভ্যতারবিবর্তনের সঙ্গে সম্পর্কিতবিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিক ও সত্যনিষ্ঠ বিবরণ। সঠিকইতিহাস সবসময় সত্যকে নির্ভরকরে রচিত।

ইতিহাসের পরিসর বর্ণনা 

মানুষ কর্তৃক সম্পাদিত সকল বিষয়ইতিহাসের আওতাভুক্ত। মানুষেরচিন্তা-ভাবনা, পরিকল্পনা, কার্যক্রমযত শাখা-প্রশাখায় বিস্তৃত, ইতিহাসের সীমাওততদূর পর্যন্ত বিস্তৃত। যেমন- প্রাগৈতিহাসিক যুগের প্রথম পর্বের মানুষের কর্মকাণ্ড খাদ্য সগ্রহের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। ফলেসে সময় ইতিহাসের পরিসরওখাদ্য সংগ্রহমূলক কর্মকাণ্ড পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। সময়ের বিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে ইতিহাস চর্চা ও গবেষণায় বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসৃত হচ্ছে। ফলে ইতিহাসের শাখা-প্রশাখারসংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে, বিস্তৃতহচ্ছে ইতিহাসের সীমানাও। উনিশশতকে শুধু রাজনীতি ইতিহাসের বিষয় হলেওমার্কসবাদ প্রচারের পরঅর্থনীতি, সমাজ, শিল্পকলারইতিহাসও রচিত হতে থাকে। এভাবে একের পর এক বিষয়ইতিহাসভুক্ত হচ্ছে আরসম্প্রসারিত হচ্ছে ইতিহাসেরপরিধি ও পরিসর।

মানবজীবনে ইতিহাস পাঠের প্রয়ােজনীয়তা বিশ্লেষণ 

মানবসমাজ ও সভ্যতার বিবর্তনেরসত্য-নির্ভর বিবরণ হচ্ছে ইতিহাস। এ কারণে জ্ঞানচর্চার শাখা হিসেবেইতিহাসের গুরুত্ব অসীম। ইতিহাস পাঠ মানুষকে অতীতের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান অবস্থা বুঝতে,ভবিষ্যৎ অনুমান করতে সাহায্য করে। ইতিহাসপাঠের ফলে মানুষের পক্ষেনিজের ও নিজদেশ সম্পর্কেমঙ্গল-অমঙ্গলের পূর্বাভাস পাওয়া সম্ভব। সুতরাং দেশ ওজাতির স্বার্থে এবং ব্যক্তিপ্রয়ােজনে ইতিহাস পাঠঅত্যন্ত জরুরি। জ্ঞান ও আত্মমর্যাদা বৃদ্ধি করে : অতীতের সত্যনিষ্ঠবর্ণনা মানুষের জ্ঞানেরপরিধি বৃদ্ধি করতে সাহায্যকরে। আর এ বিবরণ যদিহয় নিজ দেশ-জাতির সফল সগ্রাম ও গৌরবময়ঐতিহ্যের, তাহলে তামানুষকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধকরে।

একই সঙ্গে আত্মপ্রত্যয়ী, আত্মবিশ্বাসীহতে সাহায্য করে। সে ক্ষেত্রেজাতীয়তাবােধ, জাতীয় সংহতিসুদৃঢ়করণে ইতিহাস পাঠের বিকল্প নেই। সচেতনতা বৃদ্ধি করে: ইতিহাস – জ্ঞান মানুষকে সচেতন করে তােলে। উত্থান-পতন এবং সভ্যতার বিকাশও পতনের কারণগুলােজানতে পারলে মানুষভালাে-মন্দের পার্থক্যটা সহজেইবুঝতে পারে। ফলে সে তার কর্মের পরিণতিসম্পর্কে সচেতন থাকে।

দৃষ্টান্তের সাহায্যেশিক্ষা দেয় : ইতিহাসের ব্যবহারিকগুরুত্ব অপরিসীম। মানুষ ইতিহাসপাঠ করে অতীত ঘটনাবলির দৃষ্টান্ত থেকেশিক্ষা নিতে পারে। ইতিহাসেরশিক্ষা বর্তমানের প্রয়ােজনেকাজে লাগানাে যেতেপারে। ইতিহাস দৃষ্টান্তের মাধ্যমে শিক্ষাদেয় বলে ইতিহাসকে বলা হয়শিক্ষণীয় দর্পন।ইতিহাস পাঠকরলে বিচার-বিশ্লেষণের ক্ষমতা বাড়ে, দার্শনিকদৃষ্টিভঙ্গি তৈরিতে সাহায্য করে। ফলে জ্ঞানচর্চার প্রতি আগ্রহ জন্মে।

চলমান এসাইনমেন্ট গুলো নিয়ে কাজ করা প্রতিটি শিক্ষার্থীদের জন্য এক অনন্য জ্ঞানের সঞ্চার হতে পারে। কারণ অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম কিংবা এই মাধ্যম পড়াশোনার সাথে চালিয়ে নেওয়া হলে প্রতিটি শিক্ষার্থী বাস্তব বাদী শিক্ষা অর্জন করার সুযোগ পায়। শুধু মুখস্ত বিদ্যা অর্জন করে পরীক্ষায় পাশ করা কিংবা পড়ালেখা চালিয়ে সার্টিফিকেট অর্জন করা শিক্ষার প্রকৃত উদ্দেশ্য হতে পারে না। 

ব্যক্তি জীবনে এই শিক্ষাকে কাজে লাগাতে হবে। আর এক্ষেত্রে এই অ্যাসাইনমেন্ট গুলো শিক্ষার্থীদের জন্য অধিক উপযোগী হবে বলে আমি মনে করি। তাই যারা অভিভাবক আছেন তার আপনাদের সন্তানদের বাস্তব মুখী শিক্ষা ব্যবস্থায় খুব বেশী বেশী উদ্ভূদ্ধ করুন। 

এখানে থাকা এসাইনমেন্টের হুবুহু উত্তর দিয়ে নিজেকে বোকা বানানোর শ্রেষ্ঠা করবেন না কোনোভাবে। কারণ এই উত্তর কিংবা সমাধান শুধুমাত্র আপনার আইডিয়া তৈরিতে সহযোগীতা করার জন্য। এটাকে কেউ প্রিন্ট করে কিংবা বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে প্রচার করা থেকে বিরত থাকুন। 

অনেক প্রিন্টিং দোকান থেকে দেখা যায় শিক্ষার্থীদেরকে উত্তরসহ চাপিয়ে দিচ্ছে ইন্টারনেট থেকে কালেক্ট করে। আপনি অভিভাবক কিংবা শিক্ষার্থী যাই হোন এই কাজটি করা থেকে বিরত থাকুন। ইন্টারনেটে পাওয়া সকল তথ্য শতভাগ সত্যি বা নির্ভুল হওয়ার কোনো নিশ্চয়তা নেই। ধন্যবাদ এতক্ষণ সাথে থাকার জন্য। 

নবম শ্রেণীর সকল এসাইনমেন্টের সমাধান পেতে নিচের লিঙ্কে চাপুন।

Read More:   নবম (৯ম) শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট ৪র্থ (চতুর্থ) সপ্তাহ ২০২২ (সমাধান সহ)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button