সরকারী সেবা

জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার উপায়

আমাদের মধ্যে এমন অনেক ব্যক্তি আছেন যারা জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করতে চায়। আসলে যদি আপনার হাতের লেখা জন্ম নিবন্ধন থাকে। সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে সেই হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি বের করতে হবে। আর সেই সময় কিন্তু আপনার জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার প্রয়োজন হবে। অপর দিকে যদি আপনার কোন দুর্ঘটনাবশত জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে যায়। সে ক্ষেত্রেও কিন্তু আপনাকে জন্ম নিবন্ধন পুনর্মুদ্রণ করতে হবে। আর কিভাবে আপনি এই কাজটি করবেন, সে বিষয় গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার জন্যই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে।

যদি আপনি এখন পর্যন্ত হাতের লেখা জন্ম নিবন্ধন ব্যবহার করতে চান। তাহলে কিন্তু আপনাকে নানা প্রকার সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। কারণ বাংলাদেশ সরকার এর জন্ম ও মৃত্যু আইন অনুযায়ী বর্তমান সময়ে প্রত্যেকটা ব্যক্তিকে তার জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি তে রুপান্তর করতে হবে। কিন্তু আপনি যদি এখন পর্যন্ত সেই হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন দিয়ে সরকারি কাজ করতে চান। সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনি সেই জন্ম নিবন্ধন এর মাধ্যমে সে কাজ গুলো করতে পারবেন না। আর এ জন্যই মূলত আপনাদের মত এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা বর্তমান সময়ে জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করতে চাচ্ছেন।

কিন্তু এখন পর্যন্ত অধিকাংশ মানুষ জানে না যে, কিভাবে একটি হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন কে পুনঃমুদ্রণ করা যায়। তো আপনি যদি এই বিষয়টি সম্পর্কে না জেনে থাকেন। তাহলে আজকের এই আর্টিকেল টি আপনার জন্য অনেক বেশি হেল্পফুল হবে। কারণ আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনার জন্ম নিবন্ধন কে পুনঃমুদ্রণ করার প্রত্যেকটা ধাপ কে পর্যায়ক্রমে আলোচনা করব। তাই অবশ্যই আপনি চেষ্টা করবেন আজকের পুরো আর্টিকেল টি মনোযোগ সহকারে পড়ার। তাহলে এই বিষয় সম্পর্কিত আপনার মনে আর কোন কিছু অজানা থাকবে না। তাই আর দেরি না করে চলুন সরাসরি মূল আলোচনায় ফিরে যাওয়া যাক।

জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ কি?

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে থাকতে পারে যে। এই জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ কি (Birth registration reprint). আপনার মনে যদি এই ধরনের প্রশ্ন থেকে থাকে। তাহলে আমি আপনাকে বলবো যে, আপনার হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন কে অনলাইন কপি তে রুপান্তর করা। কিংবা যদি কোন কারণে আপনার জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে যায়। সেক্ষেত্রে আপনাকে পুনরায় আবার সেই জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে হবে। এবং যখন আপনি আবেদন করবেন তখন আপনি পরবর্তী সময়ে আবার আপনার অনলাইন কপির জন্ম নিবন্ধন নিতে পারবেন। মূলত এই ধরনের জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি নেয়ার প্রক্রিয়াকে বলা হয়ে থাকে, জন্ম নিবন্ধন ফরম পুনঃমুদ্রণ

জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার উপায়

উপরের আলোচনা থেকে আপনি জানতে পারলেন যে, মোট দুটি কারণে আপনার জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার প্রয়োজন হবে। আর সেই দুটি কারণের মধ্যে প্রথমটি হল, যদি আপনার হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন থাকে। তাহলে আপনি সেই জন্ম নিবন্ধন দিয়ে বর্তমান সময়ে কোনো সরকারি কিংবা বেসরকারি কাজ করতে পারবেন না। সেজন্য আপনাকে আপনার সেই হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। 

এবং আপনাকে সেই অনলাইন এর জন্ম নিবন্ধন কপি সংগ্রহ করতে হবে। আর একটি কারণ হলো যে, কোন কারনে আপনার জন্ম নিবন্ধন যদি হারিয়ে যায়। সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে পুনরায় সেই হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন কে আবার অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। মূলত যখন আপনি অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করবেন ঠিক তখনি আপনি আপনার সেই হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন কে আবার অনলাইন কপি তে রূপান্তর করতে পারবেন।

তো যদি আপনার উপরের যে কোন একটি কারণে জন্মনিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার প্রয়োজন হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে আবার অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। 

কিন্তু আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা এখন পর্যন্ত জানেনা যে, কিভাবে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি জন্য আবেদন করতে হয়। আর সেই অজানা মানুষ গুলো কে জানিয়ে দেওয়ার জন্যই। এবার আমি অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করার পুরো প্রক্রিয়া গুলোকে ধাপে ধাপে আলোচনা করব। সেজন্য আপনাকে নিচের আলোচিত আলোচনা গুলোতে নজর রাখতে হবে। চলুন এবার তাহলে জেনে নেওয়া যাক, কিভাবে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ এর জন্য আবেদন করতে হয়

কিভাবে জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ এর জন্য আবেদন করবেন?

যদি কোন কারণে আপনার কাছে থাকা জন্ম নিবন্ধন এর পুনঃমুদ্রণ করার প্রয়োজন হয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে বেশ কিছু ধাপ অতিক্রম করতে হবে। আর সেই ধাপ গুলো সম্পর্কে এবার আমি বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করব। তাই অবশ্যই যদি আপনি সেই ধাপ গুলো সঠিক ভাবে অনুসরণ করতে পারেন। তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার জন্ম নিবন্ধন এর পুনঃমুদ্রণ করতে পারবেন। চলুন এবার তাহলে সেই ধাপ গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

  1. সর্বপ্রথম আপনাকে বাংলাদেশ জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। যদি আপনি সেই ওয়েবসাইট খুঁজে না পেয়ে থাকেন। তাহলে সরাসরি এখানে ক্লিক করেও তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন।
  2. এর পরে আপনি “অনুসন্ধান এবং নির্বাচন“- নামক একটি অপশন দেখতে পারবেন। আপনাকে সেই অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  3. যখন আপনি উপরোক্ত অপশনে ক্লিক করবেন। তখন আপনি দুটি ফাঁকা বক্স দেখতে পারবেন। মূলত প্রথম বক্সে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর নম্বর প্রদান করতে হবে। এবং দ্বিতীয় বক্সে আপনার জন্ম নিবন্ধনে থাকা জন্ম তারিখ, জন্ম মাস এবং জন্ম সাল উল্লেখ করে দিতে হবে।
  4. যখন আপনি উপরোক্ত তথ্য গুলো সঠিক ভাবে দিবেন। তখন আপনাকে নিচের দিকে নির্বাচন করুন নামে একটি অপশন এ ক্লিক করতে হবে। এবং যখন আপনি নির্বাচন করুন নামক অপশনে ক্লিক করবেন। তার ঠিক পরেই আপনি কনফার্ম এবং বাতিল নামের আরও একটি অপশন দেখতে পারবেন। এই অপশনে আপনাকে কনফার্ম এ ক্লিক করতে হবে।
  5. এর পরবর্তী ধাপে আপনি বড়োসড়ো একটা পুনর্মুদ্রণ ফরম দেখতে পারবেন। মূলত এটি আপনাকে খুব সতর্কতার সহিত পূরণ করতে হবে।

তো এখানে আপনি যে তথ্যগুলো দিবেন। সেগুলো অবশ্যই সঠিক তথ্য দেয়ার চেষ্টা করবেন। এবং যখন আপনি এই ফর্মে দেওয়া তথ্য গুলো সঠিক ভাবে প্রদান করবেন। তার ঠিক পরবর্তীতে সবার নিচের ডান পাশে আপনি পুনরায় সাবমিট নামক একটি অপশন দেখতে পারবেন। আপনাকে সেই অপশনে ক্লিক করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ ফরম ডাউনলোড

যখন আপনি অনলাইনের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার জন্য আবেদন করবেন। তখন অবশ্যই আপনাকে সেই আবেদন কপিটি অনলাইনে ডাউনলোড করে নিতে হবে। এবং যখন আপনি সেটি ডাউনলোড করবেন, তখন সেই কপিটি নিয়ে আপনাকে পুনরায় আপনার নিকটস্থ ইউনিয়ন পরিষদে যেতে হবে। তবে এখানে একটা কথা বলে রাখা ভালো যে। যখন আপনি এই অনলাইনে আবেদন করবেন। তখন কিন্তু আপনার কে একটি কোড দেওয়া হবে। আপনাকে অবশ্যই সেই কোড টি মনে রাখতে হবে। এবং যখন আপনি সেই আবেদন ফরম এর অনলাইন কপি প্রিন্ট করার পর ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যাবেন। ঠিক তখনই কিন্তু আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করতে পারবেন।

Nironjon Roy

হ্যালো পাঠক, আমি Roy. আমি দীর্ঘদিন থেকে বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ করে আসছি। আমি যথাযথ চেস্টা করি নিজের জ্ঞানটুকু অন্যের মাঝে বিলিয়ে দেয়ার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button