স্বাস্থ

স্ত্রীর পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয়

পিরিয়ড প্রত্যেক সুস্থ স্বাভাবিক মেয়ের জীবনে স্বাভাবিক একটি প্রক্রিয়া। যা একজন নারীর স্বাস্থ্যের উপর বিশেষ ভূমিকা পালন করে। প্রত্যেক মাসের একটি নির্দিষ্ট সময়ে একজন স্বাভাবিক মহিলার পিরিয়ড হয়ে থাকে। একজন মেয়ের যখন পিরিয়ড হয়,তখন তার মন মানসিকতার বিভিন্ন রকম পরিবর্তন হয়। বিশেষ করে তারা এই সময় খুবই একাকীত্ব অনুভব করে। তাই এই সময় প্রত্যেক স্বামীর উচিত তার স্ত্রীর পাশে থাকা। এইজন্য আজকে আমরা স্ত্রীর পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয় গুলো বর্ণনা করবো। আশা করি,পুরোটা সময় আমাদের সঙ্গে থাকবেন।

পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয়

সাধারণত একজন মেয়ের যখন পিরিয়ড আরম্ভ হওয়া শুরু করে। তখন থেকে তার মানসিকতার বিভিন্ন রকমের পরিবর্তন হয়। এই সময় তাকে অবশ্যই মানসিকভাবে সাপোর্ট করা প্রত্যেকটা স্বামীর দায়িত্ব ও কর্তব্য। কিন্তু যে সকল পুরুষ নতুন বিবাহ করে। তারা কিন্তু জানে না স্ত্রীর মাসিক চলাকালীন সময়ে কি কি দায়িত্ব পালন করতে হবে।

নতুন যারা পুরুষ বিয়ে করেছে,তাদের জন্য কিন্তু এই করনীয় না। বরং বিবাহিত সকল পুরুষের এ করনীয় গুলো সম্পর্কে জানা দরকার। কারণ এই সময়ে একজন স্ত্রী তার স্বামীর সাপোর্ট আশা করে। চলুন দেখে নেই,স্ত্রীর মাসিক চলাকালীন সময়ে একজন স্বামীর দায়িত্ব ও কর্তব্য কি কি।

স্ত্রীকে সময় দিন

মাসের একটি নির্দিষ্ট সময়ে একজন স্বাভাবিক মহিলার পিরিয়ড শুরু হয়। আপনার স্ত্রীর যখন পিরিয়ড শুরু হবে,তখন অবশ্যই তাকে আগের থেকে একটু বেশি সময় দেওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ যখন একজন মহিলার পিরিয়ড শুরু হবে, তখন সে একাকীত্ব অনুভব করবে। তাই আপনার উচিত আপনার স্ত্রীর একাকীত্ব অনুভব দূর করা। আপনি যদি চাকরি করেন,তাহলে অফিস থেকে অন্য কোথাও না গিয়ে সরাসরি বাসায় আসবেন। তারপর আপনার স্ত্রীকে একটু সময় দেওয়ার চেষ্টা করবেন।

ঘুরতে নিয়ে যাওয়া

মহিলাদের মাসিক চলাকালীন সময়ে তাদের মানসিকতার পরিবর্তন হয়। এছাড়াও তারা এই সময়ে অনেক একাকীত্বে ভুগে থাকে। এ কারণে আপনি আপনার স্ত্রীর সাথে ঘুরতে যেতে পারেন। বড় কোন রেস্টুরেন্টে না গেলেও রিক্সা করে দুজন বিকেলে একটু ঘোরাঘুরি করলেন। তাহলে দেখবেন আপনার স্ত্রী মন ভালো হয়ে যাবে। এর পাশাপাশি তার পছন্দের খাবার কিনে দিতে পারেন।

বাড়ির কাজে সাহায্য করুন

মাসিক চলাকালীন সময়ে একজন মেয়ের শরীর বেশিরভাগ সময় খারাপ থাকে। এ কারণে মেয়েরা বাড়ির কাজের প্রতি অনিহা দেখায়। তাই আপনাকে মাসিক চলাকালীন সময়ে অবশ্যই বাড়ির কাজে স্ত্রীকে সহযোগিতা করতে হবে। এছাড়াও একজন স্বামীর দায়িত্ব বাড়ির কাজে স্ত্রীকে সব সময় সহযোগিতা করা। বিশেষ করে পিরিয়ডের সময় আরো বেশি সহযোগিতা করতে হবে।

ঝগড়া থেকে দূরে থাকুন

পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে একজন মেয়ের বিভিন্ন রকমের সমস্যা হয়ে থাকে। এই কারণে মাসিক কালীন সময়ে স্ত্রীর সাথে কোন প্রকার খারাপ ব্যবহার করবেন না। বিশেষ করে এই সময়ে ঝগড়া করাই যাবে না। স্ত্রীর যদি কোন ভুল হয়ে যায়, আপনাকে তা সংশোধন করতে হবে। এছাড়াও তার কাজের কোন সমালোচনা করবেন না। চেষ্টা করবেন এই সময়ে তার সকল কাজের প্রশংসা করার।

পছন্দের জিনিস কিনে আনুন

পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে অধিকাংশ স্ত্রীর মন অনেক খারাপ থাকে। তাই মন ভালো করার জন্য তাকে পছন্দের জিনিস কিনে দিন। আমাদের দেশের অধিকাংশ মেয়েদের ফুচকা ও চোটপটি অনেক বেশি পছন্দ। তাই ফুচকা ও চোটপটি কিনে আনতে পারেন। এছাড়াও তাকে পছন্দের কোন জিনিস গিফট করতে পারেন।

স্ত্রীকে প্রাধান্য দিন

মাসিক কালীন সময়ে স্ত্রীর মন ব্যাকুল অবস্থায় থাকে। তাই এই সময়ে আপনাকে স্ত্রীর পাশে দাঁড়াতে হবে। বিশেষ করে যেকোনো কাজে তাকে বেশি প্রাধান্য দিতে হবে। অর্থাৎ তার প্রতি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি করতে হবে। স্ত্রীর সকল কাজের প্রশংসা করতে হবে। যাতে স্ত্রী মনটা অতি দ্রুতই ভালো হয়ে যায়।

শেষ কথা: আশা করি, পিরিয়ডের সময় স্বামীর করণীয় গুলো জানতে পেরেছেন। এখন থেকে আপনার স্ত্রী যখন পিরিয়ড শুরু হবে। অবশ্যই তার সাথে ভালো ব্যবহার ও তাকে সময় দেওয়ার চেষ্টা করবেন। তাহলে দেখবেন পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে আপনার স্ত্রীর মন হাসিখুশি থাকবে ও আপনার সাথে ভালো ব্যবহার করবে।

Back to top button